সিডরের মতো প্রলয়ঙ্করী রূপ নিতে পারে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান

ডেস্ক নিউজ : | ০৭:২৪ মিঃ, মে ১৭, ২০২০



বঙ্গোপসাগরের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে শক্তি সঞ্চয় করে ক্রমান্বয়ে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিচ্ছে আম্ফান। ভারতের আবহাওয়া দফতর বলছে, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট এই ঝড় আগামী দু'দিনের মধ্যে প্রলয়ঙ্করী রূপ ধারণ করতে পারে; তখন ঘূর্ণিঝড়টি ঘণ্টায় ১৪৫ থেকে ১৭০ কিংবা ১৭০ থেকে ২০০ কিলোমিটার বাতাসের গতিবেগ নিয়ে আঘাত হানতে পারে।

রোববার ভারতের আবহাওয়া দফতরের (আইএমডি) পূর্বাভাসে বলা হয়, আম্ফান আগামী ১২ ঘণ্টার মধ্যে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে (সিভিয়ার সাইক্লোনিক স্টর্ম) এবং ১৮ মে সকালের মধ্যে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে (ভেরি সিভিয়ার সাইক্লোনিক স্টর্ম) পরিণত হতে পারে। অতি প্রবল হয়ে উঠলে এই ঝড়ের গতিবেগ আঘাত হানার সময় ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৭০ কিলোমিটার বা তারও বেশি হতে পারে।

তবে মঙ্গলবার নাগাদ আরও শক্তি সঞ্চয় করে এই ঝড় প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। সেই সময় বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ হতে পারে ঘণ্টায় ১৯০ কিলোমিটার কিংবা তারও বেশি।

এর আগে আইএমডির পূর্বাভাসে বলা হয়, ঘূর্ণিঝড়টি রোববার বঙ্গোপসাগরের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চল থেকে উত্তর-উত্তরপশ্চিমাঞ্চলে অগ্রসর হতে পারে। এরপর সেখান থেকে ১৮ থেকে ২০ মের মধ্যে সেটি পশ্চিমবঙ্গ এবং তৎসংলগ্ন ওডিশ্যা উপকূলের দিকে মোড় নিতে পারে। ১৮ মে সন্ধ্যা থেকে ওডিশ্যার বিভিন্ন প্রান্তে হালকা থেকে তীব্র বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

ভারতীয় এই আবহাওয়া দফতর বলছে, আগামী ১২ ঘণ্টায় বঙ্গোপসাগরের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল এবং তৎসংলগ্ন মধ্যাঞ্চলে সাগর উত্তাল হয়ে উঠবে। সোমবার থেকে আগামী ২০ মে পর্যন্ত বঙ্গোপসাগরের উত্তরাঞ্চল, ওডিশ্যা, পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় জেলেদের মাছ ধরা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে।

আইএমডি বলছে, ঘূর্ণিঝড় আম্ফান বর্তমানে বঙ্গোপসাগরে ওডিশ্যা প্রদেশের প্যারাদ্বীপের ৯৮০ কিলোমিটার দক্ষিণে, পশ্চিমবঙ্গের দীঘার ১ হাজার ১৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিম এবং বাংলাদেশের খেপুপাড়া থেকে এক হাজার ২৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ঝড়ের প্রভাবে আন্দামান ও নিকোবোর দ্বীপপুঞ্জে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হতে পারে।

এদিকে, মার্কিন নৌবাহিনী পরিচালিত প্রতিষ্ঠান জয়েন্ট টাইফুন ওয়ার্নিং সেন্টার (জেটিডব্লিউসি) বলছে, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় আম্ফান ক্যাটেগরি ৩ মানের। এই ক্যাটেগরির বাতাসের গতিবেগ থাকে ঘণ্টায় ১৭৮ থেকে ২০৮ কিলোমিটার।

২০০৭ সালের ঘূর্ণিঝড় সিডরের পর এত শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশ উপকূলে আঘাত হানেনি। ওই বছরের নভেম্বরে বাংলাদেশে আঘাত হানা সিডরের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২৬০ কিলোমিটার। উপকূলীয় ১৯টি জেলা লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছিল ঘূর্ণিঝড় সিডর।

 

মন্তব্যঃ সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ 57 বার।





এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

০২:১২ মিঃ, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৮

জাতির কলঙ্কময় দিন আজ

১০:৩৭ মিঃ, অক্টোবর ৩, ২০১৮

বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন

সর্বশেষ আপডেট

১১ জনপ্রতিনিধি বরখাস্ত করোনা প্রতিরোধ করেই বাঁচতে হবে : ইমরান খান সাংসদ এনামুলের বিরুদ্ধে ভ্রূণ হত্যার অভিযোগ সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম হাসপাতালে ভর্তি আগামী ১০ জুন শুরু হচ্ছে বাজেট অধিবেশন দিল্লিতে প্রবেশ সাত দিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা পুরোদমে কাজ শুরুর আহ্বান জানালেন ওবায়দুল কাদের আমেরিকায় ৪ সহস্রাধিক বিক্ষোভকারী আটক, সেনা মোতায়েন করোনা ঝুঁকি না কমা পর্যন্ত এইচএসসি হবে না: শিক্ষামন্ত্রী মানবিক কাউন্সিলর খোরশেদ করোনায় আক্রান্ত ট্রেন ভ্রমণ এখন অনলাইনে কাটা টিকিটে : রেলমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানালেন আন্তোনিও গুতেরেস বিশেষজ্ঞদের পরামর্শেই ছুটি না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত বিমান ভাড়া করে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোরশেদ খান সস্ত্রীক দেশ ছাড়লেন মোদির মন ভালো নেই : ট্রাম্প লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যা জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক প্রস্তাব নাকচ করেছে চীন উত্তর কোরিয়া ছাড়লেন ব্রিটিশ কূটনীতিকরা আবারো ৫ ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বার বরখাস্ত ১৫ জুন পর্যন্ত করোনা রোধে যেসব শর্ত মানতে হবে