ঢাকা, শনিবার, অক্টোবর ৩১ ২০২০,

এখন সময়: ০১:১৮ মিঃ

নিবন্ধন ছাড়া হাসপাতাল-ক্লিনিক চলবে না: মেয়র তাপস

ডেস্ক নিউজ : | ০৬:০৫ মিঃ, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০



নিবন্ধন ছাড়া বেসরকারি কোনো হাসপাতাল ও ক্লিনিক চলতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত কোনো বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক আমাদের নিবন্ধন নেয়নি। আমরা তাদের চিকিৎসা বর্জ্য ব্যবস্থাপনাসহ প্রত্যেকটি বিষয় উল্লেখ করে নিবন্ধনের আওতায় এনে তা বাস্তবায়নে বাধ্য করব।

বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) স্থানীয় সরকার বিভাগের সম্মেলন কক্ষে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত দেশের সকল সিটি করপোরেশন এলাকাসহ নগরবাসীর জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় সারাদেশে চিকিৎসা বর্জ্যের নিরাপদ ব্যবস্থাপনা এবং এ বিষয়ে সিটি করপোরেশন/পৌরসভাগুলোর সঙ্গে সমন্বয় বিষয়ে পর্যালোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘আমরা ইতোমধ্যে বর্জ্য ব্যবস্থাপনাকে ঢেলে সাজিয়েছি। দিনের বেলা উন্মুক্ত স্থানে কোথাও বর্জ্য রাখার সুযোগ রাখিনি। সন্ধ্যার পর থেকে আমরা বর্জ্য পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম শুরু করেছি। ঢাকাবাসী এর সুফল পাচ্ছে। এই করোনা মহামারির মধ্যে মুখোশ ও হাতমোজা চিকিৎসা সামগ্রী হলেও এখন নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটা এখন সাধারণ বর্জ্যে পরিণত হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালের মূল অনুমোদন দিয়ে থাকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীনে সেটা দেওয়া হয়ে থাকে। আজকের কার্যপত্রেই আছে, মেডিকেল প্র্যাকটিস অ্যান্ড প্রাইভেট ক্লিনিক, ল্যাবরেটরি অর্ডিন্যান্স ১৯৮২-এ আছে আবেদনের সঙ্গে আবশ্যিক ডকুমেন্টের তালিকায় হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়গনস্টিক সেন্টারের বিভিন্ন তথ্যের কথা বলা হয়েছে। আমি অত্যন্ত মর্মাহত হয়েছি, এখানে অবকাঠামো বিষয়ে কোনো নির্দেশনা নেই। জনবলের বিষয়ে সুনির্দিষ্টভাবে বলা আছে, কিন্তু সেই হাসপাতাল-ক্লিনিকের বর্জ্যগুলো কীভাবে ব্যবস্থাপনা করবে, তাদের অবকাঠানো কী থাকবে, কী নিশ্চিত করতে হবে- এ বিষয়ে এখানে কিছু বলা হয়নি।’

মেয়র তাপস বলেন, ‘‘স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন, ২০০৯-এর ১১২ ধারায় বলা হয়েছে, ‘এই আইন কার্যকর হইবার তারিখে বা তৎপর করপোরেশন এলাকায় করপোরেশনের নিবন্ধন ব্যতীত কোন প্রাইভেট হাসপাতাল, ক্লিনিক, ডায়াগনোস্টিক সেন্টার, প্যারামেডিক্যাল ইনস্টিটিউট, ইত্যাদি পরিচালনা করা যাইবে না।’ সেক্ষেত্রে আমরা এই আইনটি বাস্তবায়ন করতে চাই। আমরা এরই মধ্যে একটা বিধিমালা-প্রবিধান করব। সুনির্দিষ্টভাবে চিকিৎসা বর্জ্য কীভাবে ব্যবস্থাপনা করতে হবে, কী কী অবকাঠামো তাতে থাকতে হবে; ১০, ১০০ কিংবা ৫০০ শয্যা হোক, কী কী তাদের মানতে হবে- এই বিষয়গুলো তুলে ধরে আমরা তাদের নিবন্ধনের আওতায় আনতে চাই।’ 

মন্তব্যঃ সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ 33 বার।




সর্বশেষ আপডেট

৭ মার্চের ভাষণের ইউনেস্কোর স্বীকৃতি স্মরণে স্মারক ডাকটিকিট দেশ জাতি ও মুসলিম উম্মাহর শান্তি ও মঙ্গল কামনা প্রধানমন্ত্রীর মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক আওয়ামী লীগ নেতা সেন্টু আর নেই ভারতের বিহার রাজ্যে প্রথম দফার নির্বাচন অনুষ্ঠিত মহানবীর অনুসারীদের অপমান করেছে ফ্রান্স : খোমেনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আগাম ভোট দিলেন বাইডেন স্বাধীনতা পদক দিলেন প্রধানমন্ত্রী পোলট্রি ও ডেইরি শিল্প সুরক্ষায় নীতিমালা হচ্ছে: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী বদলির কারণে উন্নয়ন যেন বাধাগ্রস্ত না হয় : প্রধানমন্ত্রী আইনমন্ত্রী ও ভারতীয় হাইকমিশনারের বৈঠক, বিচারক-আইনজীবীদের প্রশিক্ষণে পারস্পরিক সহযোগিতার আশ্বাস করোনাকালে এশিয়ায় বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি সবচেয়ে বেশি : পররাষ্ট্রমন্ত্রী সরকার মানুষের মৌলিক চাহিদা পূরণ করছে : পলক উইঘুর মুসলমানদের সমর্থন পাচ্ছেন ট্রাম্প স্থানীয় সরকারের প্রতিষ্ঠানগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ৫ হাজার ১৮৯ কোটি টাকার তিন প্রকল্প অনুমোদন একনেকে ইরফানকে মঙ্গলবারই বরখাস্ত করা হবে : তাজুল মার্কিন বিচারপতি হিসেবে শপথ নিলেন অ্যামি কনি ব্যারেট বিএনপির অপরাজনীতিই গণতন্ত্রের প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পেতে বাধা দুবাই থেকে দেশে ফিরেছেন রাষ্ট্রপতি কেউ আইনের ঊর্ধ্বে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী